ঢাকা থেকে প্রকাশিত দৈনিক সময়ের কাগজ পত্রিকার সহ-সম্পাদক খন্দকার সোহেল টানুর উপর হামলা চালিয়ে বেধরক মারপিটের ঘটনা ঘটেছে। গত ২১ আগষ্ট রাত আনুমানিক ১১টার সময় শহরের বটতৈল বাইপাস সংলগ্ন আলামিন হোটেলের সামনে ও ভিতরে একাধিকবার এই সাংবাদিকের উপর হামলা চালানো হয়।
এদিকে হামলার পর আলামিন হোটেলের সিসিটিভি ক্যামেরার রেকর্ডিং ফুটেজ সাংবাদিকদের হাতে আসার অল্প সময়ের মধ্যেই ফুটেজটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়। ভাইরাল হওয়ার সাথে সাথে সাংবাদিকের উপর অমানুষিক নির্যাতনের ঘটনায় ফুঁসে উঠেছে জেলার সর্বস্তরের সাংবাদিকবৃন্দ। কিছুক্ষণের মধ্যেই আহত টানুকে দেখতে হাসপাতালে উপস্থিত হন সাংবাদিকরা। পরবর্তীতে হাসপাতাল থেকে সাংবাদিকদের একটি দল আহত টানু সহ কুষ্টিয়া মডেল থানায় উপস্থিত হন।
এসময় মডেল থানায় কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের সিনিয়র সহ-সভাপতি নূরন্নবী বাবু, সাধারণ সম্পাদক আনিসুজ্জামান ডাবলু, দপ্তর সম্পাদক নাহিদ হাসান তিতাস, দৈনিক বর্তমান পত্রিকার জেলা প্রতিনিধি ও এমটিএন নিউজ২৪ এর সম্পাদক ও প্রকাশক আমিন হাসান, দৈনিক জনবাণী পত্রিকার জেলা প্রতিনিধির রবিউল ইসলাম (হৃদয়) সহ উপস্থিত সাংবাদিকরা পুলিশের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তার সাথে জরুরী বৈঠক করেন এবং যত দ্রুত সম্ভব হামলাকারীদের আটক করে আইনের আওতায় আনার জোর দাবি জানান।
অন্যদিকে, আহত সাংবাদিক টানুকে নিয়ে হাসপাতাল থেকে থানায় যাওয়ার সময় পথমধ্যে এক হামলাকারীকে হাসপাতাল মোড়ে‌ দাঁড়িয়ে থাকতে দেখে ভুক্তভোগী সাংবাদিক নিজেই ঐ হামলাকারীকে সনাক্ত করে। সেসময় উপস্থিত সাংবাদিকরা হামলাকারীকে ধরে নিয়ে গিয়ে মডেল থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেন। আটক ঐ ব্যক্তির নাম রাহিম শেখ। সে সদর উপজেলা পরিষদ মোড়ের বাসিন্দা। এই রাহিমের বিরুদ্ধে চুরি ছিনতাই সহ একাধিক অভিযোগ রয়েছে।
বিষয়টি নিয়ে কুষ্টিয়া মডেল থানার ওসি অপারেশন দীপেন্দ্রনাথ প্রতিবেদককে জানান, সাংবাদিক খন্দকার সোহেল টানুর উপর হামলাকারীদের ধরতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। আইন অনুযায়ী হামলাকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।