ক্রাইম রিপোর্টার: কুষ্টিয়ায় অস্ত্র মামলায় সৈয়দ নূরে আলম ওরফে তারা বাবু (৪৪) নামে একজনকে ১৪ বছরের সশ্রম কারাদন্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত।
মঙ্গলবার (০৮ আগস্ট) দুপুরের দিকে কুষ্টিয়া জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক রুহুল আমিন আসামীর উপস্থিতিতে এ রায় ঘোষনা করেন। রায় ঘোষনার পর কঠোর পাহারায় তাকে জেলা কারাগারে প্রেরণ করা হয়। সাজাপ্রাপ্ত আসামী হলেন কুষ্টিয়া শহরের ১৮/১ এস সি সাহা লেন থানাপাড়ার মৃত সৈয়দ আবুল কাশেমের ছেলে সৈয়দ নূরে আলম ওরফে তারা বাবু।
মামলা সূত্রে জানা যায়, ২০২১ সালের ২৩ অক্টোবর পলাতক শীর্ষ সন্ত্রাসী গণমুক্তি ফৌজের প্রধান আমিনুল ইসলাম ওরফে মুকুল এর সেকেন্ড ইন কমান্ড, একাধিক হত্যা মামলার আসামী সৈয়দ নুরে আলম ওরফে তারা বাবু ঢাকা মেট্রোপলিটন এর আদাবর এর রিং রোড এলাকায় তার সহযোগি সন্ত্রাসীদের নিয়ে কুষ্টিয়ার টেন্ডারবাজি নিয়ন্ত্রণ, আসন্ন ইউপি নির্বাচনে নাশকতার পরিকল্পনা ও ঠিকাদারদের নিকট হতে চাঁদা আদায়ের লক্ষ্যে আটকের একদিন আগে রাতের দিকে গোপন বৈঠক করার পরিকল্পনা করে। উক্ত সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-১২ কুষ্টিয়া ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার স্কোয়াড্রন লিডার মোহাম্মদ ইলিয়াস খানের নেতৃত্বে র‍্যাবের একটি দল ঘটনাস্থল থেকে তারা বাবুকে আটক করে। পরে তারা বাবুর স্বীকারোক্তি মূলক জিজ্ঞাসাবাদের পর কুষ্টিয়া শহরের নিজ বাড়ীতে র‌্যাবের একটি অস্ত্র ভান্ডার খোঁজে অভিযান পরিচালনার সময়ে সৈয়দ নূরে আলম ওরফে তারা বাবুর শয়ন কক্ষের বাথরুমের উপরে ফলস সিলিং এর মধ্যে হতে আগ্নোয়াস্ত্র এসএমসি, একনলা বন্দুক, পিস্তল, রিভলভারসহ ২০ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করেন। ঘটনার পরের দিন র‌্যাবের কর্মকর্তা বাদী হয়ে কুষ্টিয়া মডেল থানায় একটি অস্ত্র আইনে মামলা দায়ের করেন। তদন্তকারী কর্মকর্তা নিশিকান্ড সরকার তদন্ত শেষ করে গত ২০২১ সালের ১৪ নভেম্বর অভিযুক্ত ব্যক্তির বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশীট দাখিল করেন। দীর্ঘদিন সাক্ষ্য প্রমাণ শেষে আদালত আজ এ রায় ঘোষনা করেন।