বাস মালিক সমিতির নেতা দুলালকে হত্যাকারী সঞ্জু এবার ব্যবসায়িকে প্রাণনাশের হুমকি দিলেন

নিজস্ব প্রতিবেদক:
  • আপডেটের সময়। বুধবার, ১১ জানুয়ারী, ২০২৩
  • ৬২ টাইম ভিউ

কুষ্টিয়া পৌরসভার ১৬ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবু জাহিদ সঞ্জুর বিরুদ্ধে এক ব্যবসায়ীকে মুঠোফোনে হুমকি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। ভুক্তভোগী ব্যবসায়ীর নাম বিশ্বনাথ সাহা বিশু। এই হমকিদাতা আবু জাহিদ সঞ্জু। ঘটনায় ভুক্তভোগী ঐ ব্যবসায়ী কাউন্সিলর সঞ্জুর বিরুদ্ধে কুষ্টিয়া মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেছেন। যার নং- ৬৩৯, তারিখ- ১০ /০১/২০২৩ ইং৷

ভুক্তভোগী ব্যবসায়ী বিশ্বনাথ সাহার সাধারণ ডায়েরীর বরাত দিয়ে জানা যায়, ব্যবসায়ী বিশ্বনাথ সাহা বিশুর সাথে কুষ্টিয়া পৌরসভার ১৬ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবু জাহিদ সঞ্জুর পূর্ব শত্রুতা রয়েছে। এরই জের ধরে ১০ জানুয়ারি মঙ্গলবার বেলা ১২.১৬ মিনিটে ব্যবসায়ীর ব্যক্তিগত মুঠোফোন নম্বরে সঞ্জু তার ব্যক্তিগত নম্বর দিয়ে ফোন দেন। ব্যবসায়ী ফোন রিসিভ করে কোন কিছু বলার আগেই কাউন্সিলর সঞ্জু তাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকে। ব্যবসায়ী তাকে গালিগালাজ করতে নিষেধ করলে কাউন্সিলর ব্যবসায়ীর উপর ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেন।

প্রতিবেদককে তিনি জানান, দীর্ঘদিন যাবত বিভিন্ন সময় কাউন্সিলর সঞ্জু তার থেকে অনৈতিকভাবে অর্থ দাবি করে আসছিলেন। কিন্তু ব্যবসায়ী বিশ্বনাথ সাহা কখনোই সেই সুবিধা দিতে রাজি হননি। যার কারণে তাদের দুজনের ভিতরে শত্রুতা বিরাজ করছিল।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পৌরসভার ১৬ নং ওয়ার্ডের বেশ কয়েকজন বাসিন্দা জানান, কাউন্সিলর নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই সঞ্জু ও তার সহযোগীরা এলাকায় নৈরাজ্য সৃষ্টি করে চলেছে। জমি দখল, চাঁদাবাজি, মাদক ব্যবসা ও বিচারের নামে অর্থ হাতিয়ে নেওয়া তাদের দৈনন্দিন কাজে পরিণত হয়েছে। এছাড়াও ২০১৩ সালে জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ৩ দিন আগে কুষ্টিয়ার শীর্ষ সন্ত্রাসী মুকুলের নির্দেশে কুষ্টিয়া জেলা বাস মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক দুলালকে সঞ্জু হত্যা করেছে বলেও গুঞ্জন উঠেছে। সঞ্জুর বড় ভাই রঞ্জু কুষ্টিয়া পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট ছাত্রদলের ভিপি ছিলো। সঞ্জু ও রঞ্জু নামে মানুষের আতংক। বর্তমানে তাদের কারনে আওয়ামীলীগের নেতা ও কর্মীরা লাঞ্চিত হতে হয়।

এদিকে ব্যবসায়ীকে মুঠোফোনে হুমকি প্রদানের কল রেকর্ডিং ইতিমধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। যেখানে কাউন্সিলরের এমন আচারণ শুনে অনেকেই হতভম্ব হয়ে গেছেন। ভাইরাল পোষ্টের কমেন্টে অনেকেই কাউন্সিলরের কঠোর শাস্তি দাবি করেছেন। তাছাড়া একজন জনপ্রতিনিধি কর্তৃক ব্যবসায়ীকে মেরে ফেলার হুমকির বিষয়টি নিয়ে কুষ্টিয়ার সামাজিক ও রাজনৈতিক মহলে নানা সমালোচনার জন্ম দিয়েছে।

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর