সুশাসন প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে ইবিতে অংশীজনদের সমন্বয় সভা।

ইবি প্রতিনিধিঃ
  • আপডেটের সময়। সোমবার, ২৮ নভেম্বর, ২০২২
  • ৭৬ টাইম ভিউ

জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল কর্ম-পরিকল্পনা ২০২২-২০২৩ বাস্তবায়নের অংশ হিসেবে প্রাতিষ্ঠানিক ব্যবস্থায় সুশাসন প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে অংশীজনদের অংশগ্রহণে সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। আজ (২৮ নভেম্বর ২০২২) বেলা ১১.০০ টায় প্রশাসন ভবনের ৩য় তলার সভাকক্ষে সভাটি অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. শেখ আবদুস সালাম বলেন, একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসেবে আমাদেরকে প্রতিবছর ইউজিসি’র সাথে বার্ষিক পারফরম্যান্স এগ্রিমেন্ট করতে হয়। শিক্ষা, গবেষণা, কোর্স কারিকুলাম, কো-কারিকুলাম অ্যাক্টিভিটিস ইত্যাদি ক্ষেত্রে বাৎসরিক আমরা কী কী কাজ করব তা আমরা বলে আসি। তিনি বলেন, সীমাবদ্ধতার মধ্যেও আমরা অনেক কিছুই করছি। সেই কাজগুলোর প্রামাণিক সফট কপি এবং হার্ডকপি নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে জমা দিতে হবে। নিজেকেই নিজের কাজটা কর্তৃপক্ষের নজরে আনতে হবে। তাহলে জবাবদিহিতা তৈরি হবে এবং জবাবদিহিতা প্র্যাকটিসে নিয়ে আসতে পারবো। এভাবে আমরা মানসম্পন্ন শিক্ষা বিতরণের লক্ষ্য নিশ্চিত করতে সক্ষম হব।

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় এপিএ টিমের আহ্বায়ক প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ মাহবুবুর রহমান সভাপতির বক্তব্যে বলেন, আমরা এপিএ কার্যক্রমকে আরো গতিশীল করতে চাই। এজন্য সবাইকে দায়িত্বশীল হতে হবে। কার্যক্রমগুলোর বিবরণ সঠিক সময়ে জমা দেয়ার আহ্বান জানান তিনি।

বিশেষ অতিথি ট্রেজারার প্রফেসর ড. মোঃ আলমগীর হোসেন ভূঁইয়া বলেন, বার্ষিক পারফরম্যান্সে এবার যে কোনো মূল্যে ভালো রেজাল্ট নিয়ে আসতে হবে। সকলের সহযোগিতা পেলে আশা করি সেটা সম্ভব হবে।

সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) এইচ. এম. আলী হাসান ।

ডিনবৃন্দ, বিভাগীয় সভাপতিবৃন্দ, অফিস প্রধানগণ এবং এপিএ সংশ্লিষ্ট কমিটির ফোকাল পয়েন্ট কর্মকর্তাগণ সভায় উপস্থিত ছিলেন। সঞ্চালনায় ছিলেন এপিএ ফোকাল পয়েন্ট কর্মকর্তা উপ-রেজিস্ট্রার (প্রশাসন) চন্দন কুমার দাস।

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর