শিরোনামঃ
এখন টিভির কুষ্টিয়া প্রতিনিধি সোহেল পারভেজের জন্মদিন আজ কুষ্টিয়া ট্রাফিক অফিস বার্ষিক পরিদর্শন করলেন এসপি খাইরুল আলম সুশাসন প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে ইবিতে অংশীজনদের সমন্বয় সভা। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিকট থেকে ইবি হ্যান্ডবল দল ও বাস্কেটবল দলের (চ্যাম্পিয়ন) পদক গ্রহণ। ইবিতে গ্লোবাল সিটিজেনশিপ এন্ড সিভিক এডুকেশন শীর্ষক দিনব্যাপী কর্মশালা অনুষ্ঠিত। দেশের সর্ববৃহৎ ব্যাংকিং নেটওয়ার্ক গড়ার প্রত্যয়ে আইএফআইসি ব্যাংক বিভিন্ন আয়োজনের মধ্যে দিয়ে পালিত হলো ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় দিবস। জনবাণী পত্রিকায় কুষ্টিয়া জেলা প্রতিনিধি হিসেবে নিয়োগ পেলেন সাংবাদিক হৃদয় কুষ্টিয়ায় ফুল বিক্রেতার গলা কাটা লাশ উদ্ধার ইবি’র ৪৩ বছর পূর্ণ হচ্ছে কাল

কুষ্টিয়ায় স্কুল শিক্ষিকার ক্লুলেস হত্যান্ডের ১২ ঘন্টার মধ্যে রহস্য উদঘাটন : খুনি ভাতিজা আটক

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদকঃ মাহাফুজ হৃদয়।
  • আপডেটের সময়। মঙ্গলবার, ৮ নভেম্বর, ২০২২
  • ২৮৩ টাইম ভিউ

মোঃ রবিউল ইসলাম হৃদয় :কুষ্টিয়ার আলোচিত স্কুল শিক্ষিকার ক্লুলেস হত্যাকাণ্ডের ১২ ঘন্টার মধ্যে মূল রহস্য উন্মোচন ও একমাত্র আসামি নওরোজ কবির নিশাত (১৯) কে আটক করেছে কুষ্টিয়া জেলা পুলিশের একটি বিশেষ টাক্সফোর্স টীম।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, সোমবার (৭ নভেম্বর) সকাল দশটার পর এই হত্যাকাণ্ডের সংবাদ প্রকাশের পর কুষ্টিয়া জেলা পুলিশের বিভিন্ন ইউনিটের সমন্বয়ে একটি বিশেষ টিম গঠন করেন পুলিশ সুপার খাইরুল আলম। পুলিশ সুপার খাইরুল আলমের নেতৃত্বে বিশেষ ট্রান্সফোর্স টীম হত্যাকান্ডে জড়িত আসামী শনাক্ত ও আটকের জন্য বিশেষ ভাবে তদন্ত শুরু করে। তারই ধারাবাহিকতায় হত্যাকারী নিশাতকে হত্যার ১২ ঘন্টার মধ্যেই শনাক্ত করে ও আসামীকে আটক করে পুলিশ।

আরোও জানা যায়, নওরোজ কবির নিশাত ছিলেন মাদকাসক্ত ও জুয়া খেলাই আসক্ত। রোকসানা খানম রুনা কিছুদিন আগে ভাতিজা নিশাতকে ১ লাখ ৯০ হাজার টাকা মুল্যের একটি মটরসাইকেল কিনে দেন। কিন্তু নিশাত জুয়া খেলায় হেরে সেই মটরসাইকেলটি বিক্রি করে দেয়। রোকসানা খানম রুনা বিভিন্ন ভাবে নিশাতকে বোঝানোর চেষ্টা করতেন, তারই ধারাবাহিকতায় রবিবার (৬ নভেম্বর) রাতে যখন রোকসানা খানম রুনা তার ভাতিজা নিশাতকে বকাবকি করে তখনই নিশাত উত্তেজিত হয়ে রান্না ঘর থেকে শীল পাটার (নুড়া) নিয়ে এসে রোকসানা খানম রুনার মাথায় সজোড়ে আঘাত করে। যখন রক্তাক্ত অবস্থায় রোকসানা খানম রুনা মাটিতে লুটিয়ে পরে তখন নিশাত ঘটনাকে ভিন্ন দিকে মোড় দেবার জন্য ঘরবাড়ি এলোমেলো করে দেয়। হত্যার পর নিশাত বাসার বারান্দার ওপরের ডিজাইন করা গোল ছিদ্র দিয়ে বের হন। আর হত্যায় ব্যবহৃত (শীল) পরিত্যক্ত লিফট ঘরে ফেলে দেয়।

উল্লেখ্যঃ রোকসানা খানম রুনা নিঃসন্তান হওয়ায় তার ছোট ভাইয়ের ছেলেকে ২য় শ্রেনী থেকে নিজের কাছে রেখে নিজের সন্তানের মত লালন পালন করে আসছিলেন।

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর