শিরোনামঃ
এখন টিভির কুষ্টিয়া প্রতিনিধি সোহেল পারভেজের জন্মদিন আজ কুষ্টিয়া ট্রাফিক অফিস বার্ষিক পরিদর্শন করলেন এসপি খাইরুল আলম সুশাসন প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে ইবিতে অংশীজনদের সমন্বয় সভা। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিকট থেকে ইবি হ্যান্ডবল দল ও বাস্কেটবল দলের (চ্যাম্পিয়ন) পদক গ্রহণ। ইবিতে গ্লোবাল সিটিজেনশিপ এন্ড সিভিক এডুকেশন শীর্ষক দিনব্যাপী কর্মশালা অনুষ্ঠিত। দেশের সর্ববৃহৎ ব্যাংকিং নেটওয়ার্ক গড়ার প্রত্যয়ে আইএফআইসি ব্যাংক বিভিন্ন আয়োজনের মধ্যে দিয়ে পালিত হলো ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় দিবস। জনবাণী পত্রিকায় কুষ্টিয়া জেলা প্রতিনিধি হিসেবে নিয়োগ পেলেন সাংবাদিক হৃদয় কুষ্টিয়ায় ফুল বিক্রেতার গলা কাটা লাশ উদ্ধার ইবি’র ৪৩ বছর পূর্ণ হচ্ছে কাল

দৌলতপুরে গবাদিপশুর লাম্পিস্কিন ডিজিসের প্রকোপ, অর্থ ছাড় চিকিৎসা মিলছে না

সাইফুল ইসলামঃ
  • আপডেটের সময়। সোমবার, ৩ অক্টোবর, ২০২২
  • ৯২ টাইম ভিউ

নিজস্ব প্রতিনিধি : কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলায় গবাদিপশুর লাম্পিস্কিন ডিজিস রোগের প্রকোপ বাড়ছে। দিনদিন এখানকার বিভিন্ন এলাকায় গবাদিপশুর মাঝে এই রোগের সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ছে। এ পর্যন্ত প্রায় ৮০ ভাগ পশু রোগটিতে কমবেশি সংক্রমিত হয়েছে। এতে দুশ্চিন্তাগ্রস্ত হয়ে পড়েছেন কৃষকসহ ছোট-বড় খামারিরা। এমনিতেই গোখাদ্যের সংকট দেখা দিয়েছে, তার ওপরে এই সংক্রামক রোগ ছড়িয়ে পড়ায় এখন দিশাহারা অবস্থা খামারিদের। তবে এই রোগের বিস্তার নিয়ন্ত্রণে উপজেলা প্রাণিসম্পদ দপ্তরের কার্যকর কোনো তৎপরতা দেখা যাচ্ছে না, বরং রোগকে পুঁজি করে প্রাণি চিকিৎসক অবৈধভাবে অর্থ আয়ের প্রতি ঝুঁকে পড়েছেন বলে গবাদিপশু পালনকারী কৃষক ও খামারিদের অভিযোগ।

খামারিরা জানান, লাম্পিস্কিন ডিজিসে আক্রান্ত গরুর শরীরে প্রথমে ফোসকা দেখা দিচ্ছে। পরে তা চাকা চাকা হয়ে গরুর সারা গায়ে ছড়িয়ে পড়ছে এবং ক্ষত সৃষ্টি হচ্ছে। গলা ও পা ফুলে যাচ্ছে। মুখ দিয়ে অনবরত
লালা ঝরছে। শরীরের তাপমাত্রা অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে যাচ্ছে। খাবার খাওয়া বন্ধ করে দিচ্ছে। আক্রান্ত গরু দুর্বল হয়ে পড়ায় শুয়ে থাকলে উঠে দাঁড়াতে পারছে না। আবার কখনো দাঁড়ালেও খুঁড়িয়ে হাঁটছে। গবাদিপশুর এই রোগ ইতোমধ্যে উপজেলার অধিকাংশ এলাকায় ছড়িয়ে পড়েছে। সুচিকিৎসার অভাবে অনেকের গরু মারাও গেছে।

ভুক্তভোগী খামারিরা অভিযোগ করেন, উপজেলা প্রাণিসম্পদ দপ্তরে যোগাযোগ করা হলেও তারা ঠিকমতো গবাদিপশুর চিকিৎসা দিতে চান না, গড়িমসি করে বাড়ি পাঠিয়ে দেন। পশু হাসপাতাল নামে অধিক পরিচিত সেখানকার চিকিৎসককে আক্রান্ত গরুর চিকিৎসার জন্য ডাকা হলে তিনি সুযোগ বুঝে দেড় হাজার থেকে দুই হাজার টাকা ভিজিট আদায় করেন। নিয়মবহির্ভূত এই ভিজিটের টাকা না দিলে তিনি যেতে চান না। প্রাণিসম্পদ দপ্তর ও দপ্তর সংলগ্ন পশু চিকিৎসার ওষুধের দোকানগুলোতে দালাল চক্র রয়েছে। তারা দীর্ঘদিন ধরে দপ্তরটিকে জিম্মি করে রেখেছে। এই দালালরাই কার্যত দপ্তরটির বিভিন্ন বিষয় নিয়ন্ত্রণ করে আসছেন।

উপজেলা প্রাণিসম্পদ দপ্তর সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র পরিচয় গোপন রাখার শর্তে জানান, প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মাহমুদুল ইসলাম টাকা ছাড়া কোথাও যান না। কেউ গবাদিপশু নিয়ে তার কাছে গেলে তিনি নানা অজুহাতে ফিরিয়ে দেন। ভুক্তভোগীরা বাধ্য হয়ে তাকে বাড়িতে ডাকেন। পরে তিনি বাড়ি বাড়ি গিয়ে নির্ধারিত ভিজিটসহ অন্তত তিন থেকে সাড়ে তিন হাজার টাকা আদায় করেন। সূত্র মতে, প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা বিভিন্ন ওষুধ কোম্পানির প্রতিনিধিদের কাছ থেকে যেসব ওষুধ ফ্রি পান সেই ওষুধ, এমনকি সরকারি ওষুধ দিয়েও তিনি একেকজনের কাছ থেকে নির্ধারিত ওই অঙ্কের টাকা আদায় করেন। সেগুলো নিজের টাকায় কেনা ওষুধ বলে চালিয়ে দেন তিনি। গ্রামাঞ্চলের সহজ-সরল লোকজন কোনটি সরকারি ওষুধ আর কোনটি কোম্পানির ফ্রি ওষুধ তা বুঝতে না পেরে তার দাবি করা টাকা পরিশোধে বাধ্য হন বলে দপ্তর সংশ্লিষ্ট সূত্রটি জানিয়েছে।

উপজেলা পরিষদের পার্শ্ববর্তী এলাকার মধ্যে মানিকদিয়াড় গ্রামের তুফান মণ্ডল, পশ্চিমপাড়ার নুর মোহাম্মদ ও পূর্বপাড়া গ্রামের আনারুল ইসলাম জানান, তাদের গরুর গায়ে ফোসকা ও ঘা হওয়ায় গরু নিয়ে প্রাণিসম্পদ দপ্তরে যান। কিন্তু চিকিৎসা না দিয়ে ফিরিয়ে দেয়া হয়। পরে প্রাণিসম্পদ দপ্তরের সামনের দোকান থেকে ওষুধ কেনেন তারা। ওষুধের পেছনে একেকজনের ৫ থেকে ৭ হাজার টাকা খরচ হয়ে গেলেও এখনো তাদের গরু সুস্থ হয়নি। তুফান মণ্ডল জানান, তার গরুর পায়ে গভীর ক্ষত সৃষ্টি হয়ে যে ঘা হয়েছে তা আর ভালো হওয়ার লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না। দিনদিন সেই ঘা বেড়ে যাওয়ায় এখন সেখানে পচন ধরে পোকা হওয়ার উপক্রম দেখা দিয়েছে।

ভুক্তভোগীরা বলেন, ‘প্রাণিসম্পদ দপ্তরের চিকিৎসক বাড়ি অথবা খামারে আসলে তার মোটরসাইকেলের জ্বালানি খরচ দিতে আমাদের আপত্তি নেই। কিন্তু সরকারি জরুরি সেবাদানের ক্ষেত্রে ভিজিট এবং দাবি করা অন্যান্য টাকা কেন দিতে হবে। রোগটিকে পুঁজি করে সম্পূর্ণ অবৈধভাবে টাকা আদায় করে আসছেন তিনি। এখানে নতুন যোগ দিয়ে চিকিৎসার চেয়ে অবৈধ অর্থ আয়ের প্রতিই বেশি ঝুঁকে পড়েছেন এই প্রাণি চিকিৎসক। ফলে টাকা ছাড়া মিলছে না চিকিৎসা।’

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, দৌলতপুর উপজেলার প্রায় প্রতিটি এলাকায় কৃষক ও ছোট-বড় খামারিদের পালন করা গবাদিপশু কমবেশি লাম্পিস্কিন ডিজিস রোগে আক্রান্ত হয়েছে। এ পর্যন্ত এখানকার প্রায় ৮০ ভাগ গবাদিপশু এই রোগে সংক্রমিত হয়েছে। সংক্রামক রোগটির বিস্তার নিয়ন্ত্রণে উপজেলা প্রাণিসম্পদ দপ্তরের কার্যকর কোনো তৎপরতা নেই বললেই চলে। একদিকে গোখাদ্যের সংকট দেখা দিয়েছে, অন্যদিকে গবাদিপশুর রোগ ছড়িয়ে পড়েছে। ফলে খামারিরা তাদের গবাদিপশু নিয়ে চরম বিপাকে পড়েছেন। দিনদিন গবাদিপশুর এই রোগের প্রকোপ বৃদ্ধি পাওয়ায় কৃষক ও খামারিদের মধ্যে দুশ্চিন্তা বাড়ছে। এদিকে গরুর শরীর থেকে মানুষের শরীরে রোগটি ছড়িয়ে পড়তে পারে- এমন আশঙ্কায় রোগাক্রান্ত গরুর পরিচর্যা করতেও ভয় কাজ করছে অনেকের মধ্যে।

উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মাহমুদুল ইসলাম মোবাইল ফোনে জানান, লাম্পিস্কিন ডিজিস (এলএসডি) রোগটি করোনার মতোই গবাদিপশুর ভাইরাসজনিত নতুন রোগ। দেশে এর ভ্যাকসিন এখনো অাবিষ্কার হয়নি। এই রোগ প্রধানত মশা-মাছি, কীট-পতঙ্গের মাধ্যমে ছড়ায়। গবাদিপশুর এমন রোগ দেখা দিলে মশারির মধ্যে রাখার পরামর্শ দেন তিনি। আক্রান্ত গবাদিপশু আলাদাভাবে রাখার কথা বলেন। এই রোগের বিষয়ে প্রাণিসম্পদ দপ্তরে গিয়ে পরামর্শ নেয়ার কথাও জানান। তবে তিনি নিয়মবহির্ভূতভাবে টাকা গ্রহণের অভিযোগ অস্বীকার করেন। দপ্তরটিকে কেন্দ্র করে গড়ে ওঠা দীর্ঘদিনের দালাল চক্রকে নির্মূল করতে আরো কিছুদিন সময় লাগবে বলে তিনি জানিয়েছেন।

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর