শিরোনামঃ
জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে ইবির শেখ রাসেল হলে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল কুষ্টিয়ায় র‍্যাবের সেরা অভিযানে বিপুল পরিমাণ ফেনসিডিল ও গাঁজা সহ শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার কুষ্টিয়ায় র‌্যাবের অভিযানে বিপুল পরিমাণ ফেনসিডিল ও গাঁজা সহ ০১ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার। কুষ্টিয়ায় দুটি হত্যা মামলায় ৬ জনের যাবজ্জীবন অধ্যাপক পদে পদোন্নতি পেলেন ইবি আইন বিভাগের শিক্ষক ড.মাহবুব বিন শাহজাহান ইবি ছাত্রলীগের কমিটিতে সাংগঠনিক সম্পাদক সোহাগ শেখ আমাদের খেলার মাঠ কেড়ে নিও না কুষ্টিয়া যুব উন্নয়ন পরিষদ এর বিশেষ বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত। বর্তমান সমাজের বাস্তব রূপ” …….কাজী মারুফ কুষ্টিয়ায় জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে জামায়াতের বিক্ষোভ মিছিল, আটক -৭

মেডিকেলে চান্স পাওয়া সেই সবুজের পাশে মৌবন

স্টাফ রিপোর্টারঃ
  • আপডেটের সময়। রবিবার, ১০ এপ্রিল, ২০২২
  • ১৯৩ টাইম ভিউ

রাজু আহমেদ: অভাবের কারণে মেডিকেলে সুযোগ পেয়েও ভর্তি হওয়া নিয়ে অনিশ্চয়তায় পড়েছিলেন সবুজ আহমেদ। চারদিক যেন অন্ধকার হয়ে আসছিল তার। তবে সব অন্ধকার দূর করে আলো হলে এবার তার পাশে দাঁড়িয়েছেন মৌবনের নির্বাহী পরিচালক ও নারী বাতায়নের সভাপতি সাফিনা আঞ্জুম জনী।

রোববার (১০ এপ্রিল) বিকেল ৩টার দিকে সবুজ ও তার বাবার সঙ্গে সরাসরি কথা বলেছেন জনী। এ সময় সবুজের পাশে দাঁড়ানোর আশ্বাস দিয়েছেন তিনি। সবুজের পড়াশুনার দায়িত্ব নেওয়ায় তার পরিবারে বইছে আনন্দের জোয়ার।

সবুজ আহমেদ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার মরিচা ইউনিয়নের বৈরাগীরচর গ্রামের নতুন চর স্কুলপাড়ার সবজি বিক্রেতা আব্দুর রাজ্জাক সর্দারের ছেলে। তারা এক বোন ও ছয় ভাই। ভাইবোনের মধ্যে সবুজ পঞ্চম। ছোটবেলা থেকেই লেখাপড়ায় খুব আগ্রহী ছিলেন তিনি।

পিইসি ও জেএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছেন। এসএসসি ও এইচএসসিতেও বিজ্ঞান বিভাগ থেকে পেয়েছেন জিপিএ-৫। রাজশাহী সরকারি মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজ কেন্দ্রে পরীক্ষা দিয়েছিলেন সবুজ। লিখিত পরীক্ষায় ৭৪ নম্বর পেয়েছেন। সবমিলিয়ে তার মোট প্রাপ্ত নম্বর ২৭৪।

মেডিকেলে ভর্তির সুযোগ পেয়েও টাকার অভাবে সবুজের মেডিকেলে ভর্তির অনিশ্চয়তা নিয়ে গত বৃহস্পতিবার (৭ এপ্রিল) নিউজ পোর্টাল ঢাকা পোস্টে ‘মেডিকেলে ভর্তির সুযোগ পেয়েও দুশ্চিন্তায় সবুজ’ এই শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। খবরটি ফেসবুক গ্রুপ ‘নারী বাতায়ন’ এর মাধ্যমে জানতে পেরে সাফিনা আঞ্জুম জনী সবুজের পরিবারের সাথে কথা বলেন এবং সার্বিকভাবে সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

মেডিকেলে ভর্তির সুযোগ পাওয়া সবুজ আহমেদ ঢাকা পোস্টকে বলেন, আল্লাহর কাছে হাজার শুকরিয়া যে আমি কুষ্টিয়া মেডিকেলে ভর্তির সুযোগ পেয়েছি। কিন্তু বাবা গরিব হওয়ায় লেখাপড়া চালিয়ে নেওয়ার সামর্থ্য নেই। হাটে সবজি বিক্রি করে সংসার চলে। তবে মেডিকেলে ভর্তি ও পড়ালেখা চালিয়ে নিতে সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছেন মৌবনের নির্বাহী পরিচালক ও নারী বাতায়নের সভাপতি সাফিনা আঞ্জুম জনী আন্টি। তিনি অনেক ভালো মানুষ। আমি সবার কাছে দোয়া চাই, যেন লেখাপড়া শেষ করে ভালো ডাক্তার হতে পারি। আর আমার পাশে দাঁড়ানোর জন্য জনী আন্টির প্রতি অশেষ ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা।

সবুজের বাবা আব্দুর রাজ্জাক সর্দার বলেন, আমি গরিব মানুষ। আমার ছয়টা ছেলে ও একটা মেয়ে। খুব কষ্ট করে আমার ছেলে সবুজ এ পর্যন্ত পৌঁছেছে। কখনো খাবার জুটেছে, কখনো জোটেনি। আমি শাক-সবজির ব্যবসা করি। অর্থনৈতিক দুরবস্থার মধ্যেও সন্তানের পড়ালেখায় উৎসাহ দিয়েছি। আমি বহু কষ্ট করে তাকে পড়িয়েছি। নদী ভাঙনে আমাদের সব জমি নদীতে বিলীন হয়ে গেছে। শুধু বাড়ির জমিটা আছে।

তিনি আরও বলেন, আল্লাহর রহমতে আমার ছেলে মেডিকেলে চান্স পেয়েছে। কিন্তু তাকে ভর্তি করার মতো টাকা আমাদের নেই। সবুজের ভর্তি ও পড়ালেখা কীভাবে করাব, এসব নিয়ে চিন্তা করে কোনো কূল-কিনারা পাচ্ছিলাম না। কিন্তু আজ মৌবনের নির্বাহী পরিচালক ও নারী বাতায়নের সভাপতি সাফিনা আঞ্জুম জনী নামে মানবিক মানুষের সঙ্গে সরাসরি কথা হয়েছে। তিনি সবুজের পড়াশোনা চালিয়ে নিতে সার্বিক সহযোগিতা করবেন। বিপদের সময় পাশে থাকার জন্য আমরা খুব খুশি।

গত শুক্রবার নারী বাতায়ন ফেসবুক গ্রুপে সাফিনা আঞ্জুম জনী একটি পোস্ট দেন। সেখানে তিনি লেখেন, ‘কুষ্টিয়ার কোনো গরিব-মেধাবী শিক্ষার্থী, যে পাবলিক মেডিকেলে ভর্তির সুযোগ পেয়েছেন অথচ ভর্তির টাকা বা পড়াশোনা চালিয়ে যাবার মতো যথেষ্ট সামর্থ্য নেই- এমন কেউ থাকলে বা কারও জানাশোনা থাকলে অবশ্যই আমাদের জানাবেন। আমাদের একজনের ২৩ সালে বিশ্ববিদ্যালয় পর্ব শেষ হবে ইন শা আল্লাহ্। আর আলহামদুলিল্লাহ্ একজন এ বছর ডা. হয়ে গেল। তাই আমরা নতুন দুজনকে নারী বাতায়ন থেকে পড়াশোনা চালিয়ে নেওয়ার সুযোগ দিতে চাই।’

ওই পোস্টে ঢাকা পোস্টের কুষ্টিয়া প্রতিনিধি সবুজকে নিয়ে লেখা প্রতিবেদনের লিংক কমেন্ট করলে তিনি ওই প্রতিবেদকের মাধ্যমে সবুজের সঙ্গে যোগাযোগ করেন এবং সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

নারীদের উন্নয়ন ও নারীদের স্বাবলম্বী করতে বিভিন্ন ধরনের কার্যক্রমের পাশাপাশি সামাজিক কর্মকাণ্ডে সম্পৃক্ত রয়েছে নারী বাতায়ন সংস্থাটি। যেটির উদ্যোগে রয়েছে মৌবন রেস্টুরেন্ট।

মৌবনের নির্বাহী পরিচালক ও নারী বাতায়নের সভাপতি সাফিনা আঞ্জুম জনী বলেন, মানুষের কাজই হচ্ছে বিপদে মানুষের পাশে থাকা এবং জনসেবামূলক করা। আমি খবর পেয়েছিলাম, সবুজ মেডিকেলে সুযোগ পেয়েও ভর্তি হতে পারছে না। খবরটি পাওয়ার পর আমি তার পরিবারের সঙ্গে কথা বলেছি। আমি সার্বিকভাবে সহযোগিতা করব সবুজকে। এটা আমাদের সেবামূলক কাজ। এ ছাড়া সবুজের মতো এমন যারা রয়েছে তাদের পাশেও আমরা দাঁড়াব ইনশাআল্লাহ।

 

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর