শিরোনামঃ
কুষ্টিয়া শহরের ১০ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের শোকাবহ আগস্ট উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া অনুষ্ঠিত ভেড়ামারায় পুলিশের অভিযান… ৫ মাদকসেবী ও পলাতক আসামীসহ ১২ জন গ্রেপ্তার বঙ্গবন্ধু হত্যার মতো জঘন্যতম ঘটনা বিশ্বের বুকে দ্বিতীয়টি আর ঘটেনি পুলিশ কেস সিল মারায় কুষ্টিয়ায় ডাক্তারকে মারধরের অভিযোগ কন্যাদায়গ্রস্থ পরিবারকে সাহায্য করলো রোটারি অফ ঢাকা ব্রাইট কুষ্টিয়া মডেল থানা পুলিশের অভিযানে টাপেন্টাডল ট্যাবলেট সহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার ইবিতে জাতীয় শোক দিবস পালিত একটি অসম প্রেমের অকাল সমাপ্তি ছাত্রকে বিয়ে করা সেই শিক্ষিকা আত্মহত্যা করেছেন কুষ্টিয়া র‌্যাবের অভিযানে ২৮ বোতল ফেনসিডিল সহ ০১ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার কুষ্টিয়ায় ট্রাফিক পুলিশের সার্জেন্ট নাজমুলের হাতে ভুয়া এডিসি (ডিএমপি) ডিবি আটক

সাংবাদিক রিপনের বাড়িতে হামলা, ভাংচুর লুটপাট! নাইমুলসহ ৪জনের বিরুদ্ধে থানায় এজাহার দায়ের

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ আমিন হাসান
  • আপডেটের সময়। বুধবার, ৬ এপ্রিল, ২০২২
  • ১৮০ টাইম ভিউ

৭ এপ্রিল ২০২২।। কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের যুগ্ম সম্পাদক ও দৈনিক যুগান্তরের জেলা প্রতিনিধি এবং দৈনিক কুষ্টিয়ার খবর পত্রিকার সম্পাদক এ এম জুবায়েদ রিপনের বাড়িতে হামলা চালিয়ে ভাংচুর ও লুটপাট করেছে কুষ্টিয়া পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নাইমুল ইসলাম ও ক্যাডার বাহিনী। এসময় সাংবাদিক রিপনসহ তাঁর পরিবারের সদস্যদের মারধর করে কাউন্সিলরের ক্যাডার বাহিনী। হামলায় রিপনসহ তাঁর ভাই এলিন আহত হয়েছেন। বুধবার সকাল ৭দিকে কুষ্টিয়া শহরের পাঁচ রাস্তার মোড়ে নিজ বাড়িতে এই হামলার শিকার হয়েছেন সাংবাদিক রিপন ও পরিবার। এঘটনায় বুধবার রাতে কাউন্সিলর নাইমুল ইসলামসহ ৪জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরো ৩/৪জনকে আসামি কুষ্টিয়া মডেল থানায় এজাহার দায়ের করা হয়েছে। হামলাকারীদের মধ্যে দুইজনকে শনাক্ত করা গেছে। তারা হলেন শহরের কমলাপুর এলাকার সামসুলের ছেলে মোস্তাক ও জয়ের ছেলে লিমন। শনাক্তকারী দুইজন এলাকার চিহৃত মাদক ব্যবসায়ী বলে নিশ্চিত করেছেন স্থানীয়রা।
স্থানীয় একাধিক সুত্রে জানা যায়, কুষ্টিয়া পৌরসভার মাদকাসক্ত কাউন্সিলর নাইমুল ইসলাম। প্রতি রাঁতে সুইপার কলোনীতে বসে তিনি মাদক সেবন করেন। তাঁর বিরুদ্ধে নেশা করে অসভ্যতা এবং মধ্য রাতে মাতাল অবস্থায় মসজিদের ঈমান ও ছাত্রদের ধরে মারধরের অভিযোগ রয়েছে। নাইমুলের বিরুদ্ধে নারী কেলেংকারীর অভিযোগের শেষ নেই। একাধিক বিয়ে ও ডিভোর্স তাঁর নিত্য দিনের খেলায় পরিণত হয়েছে। উত্তর কমলাপুরে মাদকসহ পতিতাবৃত্তির অভিযোগ রয়েছে কাউন্সিলর নাইমুলের বিরুদ্ধে। একাধিক নারীর জমি দখলসহ টলি-নসিমন থেকে তাঁর ক্যাডার বাহিনী দিয়ে নিয়মিত চাঁদা তোলেন নাইমুল ইসলাম। বেশ কিছুদিন আগে এলাকায় গরু চুরির ঘটনায় আটক চোর চক্র স্বীকার করেন কাউন্সিলর নাইমুলের নির্দেশে তাঁরা গরু চুর করেছিলেন। এছাড়াও এলাকার মানুষের বিভিন্ন সময় ফাঁদে ফেলে মীমাংসার নামে অর্থ আদায়ের অভিযোগ রয়েছে তাঁর বিরুদ্ধে। এলাকার মানুষ নাইমুলের অত্যাচারে অতিষ্ঠ। ক্যাডার বাহিনীর ভয়ে এলাকার কেউ নাউমুলের বিরুদ্ধে মুখ খুলতে সাহস পায় না। নাইমুলের নানা অপকর্মের সংবাদ একাধিবার বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় প্রকাশ পেয়েছে।
সাংবাদিক রিপন বলেন, শরিকানা জমি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে স্থানীয় সালেক মোহম্মদ কাদেরীর সাথে আমার বিরোধ চলে আসছে। বুধবার ভোরে কাউন্সিলর নাইমুলসহ তাঁর ক্যাডার বাহিনী ভাড়া করে হত্যার উদ্দেশ্যে আমার বাড়িতে হামলা চালায়। এসময় নাইমুল ইসলামের নেতৃত্বে তাঁর ক্যাডার বাহিনী বাড়ির মধ্যে প্রবেশ করে আমাকে ও আমার পরিবারের সদস্যদের মারধর করে বাড়িতে ভাংচুর ও লুটপাট করে। বেশি বাড়াবাড়ি করলে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে সন্ত্রাসীরা চলে যায়।
কুষ্টিয়া মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ সাব্বিরুল আলম বলেন, হামলাকারীদের চিহৃত করা গেছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে তাঁদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। এদিকে ন্যাক্কারজনক এই হামলা রবিচার দাবি করে অবিলম্বে নাইমুলসহ তার ক্যাডার বাহিনীর সদস্যদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি দাবি জানিয়েছেন কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবসহ সর্বস্তরের সাংবাদিকরা।

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর