শিরোনামঃ
ইবিতে গ্লোবাল সিটিজেনশিপ এন্ড সিভিক এডুকেশন শীর্ষক দিনব্যাপী কর্মশালা অনুষ্ঠিত। দেশের সর্ববৃহৎ ব্যাংকিং নেটওয়ার্ক গড়ার প্রত্যয়ে আইএফআইসি ব্যাংক বিভিন্ন আয়োজনের মধ্যে দিয়ে পালিত হলো ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় দিবস। জনবাণী পত্রিকায় কুষ্টিয়া জেলা প্রতিনিধি হিসেবে নিয়োগ পেলেন সাংবাদিক হৃদয় কুষ্টিয়ায় ফুল বিক্রেতার গলা কাটা লাশ উদ্ধার ইবি’র ৪৩ বছর পূর্ণ হচ্ছে কাল প্রতারণার মাধ্যমে টাকা তুলে নেয়ায় দিশেহারা দরিদ্র শাজাহান কুষ্টিয়া হরিপুরে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে দুই ভাইকে কুপিয়ে জখম : টাকা ও স্বর্ণালংকার ছিনতাই রবিউল হত্যা মামলায় চর মিলপাড়ার রনিকে চক্রান্ত করে ফাঁসানোর দাবি পরিবারের কুষ্টিয়ায় এসপি খাইরুল আলমের নির্দেশে ৬৭ টি চোরাই মোবাইল ও বিকাশ প্রতারনার টাকা উদ্ধার

দৌলতপুরে পিতার উপর প্রতিশোধ নিতে,পুত্রের নামে মিথ্যা অপহরন মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ
  • আপডেটের সময়। সোমবার, ২৮ মার্চ, ২০২২
  • ৪০০ টাইম ভিউ

কুষ্টিয়া দৌলতপুর উপজেলার লালনগর গ্রামের ব্যবসায়ী ইলিয়াস আলী পাট কেনার জন্য আড়িয়া মন্ডল পাড়ার ফড়িয়া আবের আলীকে ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা অগ্রিম দিয়েছিলেন। কিন্তু আবের আলী মৌসুম শেষ হলে পাটও দেননি আবার টাকাও ফেরত দেননি।
এ নিয়ে আবেদ আলীর সঙ্গে ইলিয়াস আলীর কয়েকদফা ঝামেলা হয়েছে। সেই রাগে এবার ইলিয়াস আলীর বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যায়নরত ছেলের বিরুদ্ধে আবেদ আলীর মেয়েকে অপহরণের দায়ে মিথ্যা মামলা দায়ের করেছেন আবেদ আলী। শুধু তাই নয় এলাকার শিক্ষার্থীদের মিথ্যা গালগপ্প শুনিয়ে খেপিয়ে তুলে এ ঘটনায় মানববন্ধন করেছেন আবেদ আলী।
ইলিয়াস আলী জানান, তিনি সরকারি লাইসেন্সধারী পাট ব্যবসায়ী। প্রতিবছর পাট ক্রয় মৌসুম শুরুর আগে তিনি এলাকার ফড়িয়াদের কাছ থেকে পাঠ কেনার জন্য অগ্রিম টাকা দিয়ে থাকেন এরই ধারাবাহিকতায় ২০২০ সালের জুন মাসে তিনি ফড়িয়া আবের আলীকে ১লাখ ৫০ হাজার টাকা দেন। কিন্তু ওই বছর কেনার মৌসুম শেষ হয়ে গেলেও ইলিয়াস আলীকে পাট দেননি আবের আলী। ইলিয়াস টাকা ফেরত চাইলে তিনি আজ দেবো কাল দেবো বলে ঘোরাতে থাকে।
পরে তাদের মধ্যে এ নিয়ে কয়েক দফা বাকবিতণ্ডা হয়। এই টাকা নিয়ে ইলিয়াসের মধ্যে ঝামেলা চলে আসছিল। এই ঝামেলা থেকে বাচতে তার মেয়ে অপহরণের মিথ্যা মামলা করেছেন ইলিয়াসের ছেলে লিংকনের নামে। লিংকন রাজধানীর বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র গত ১৭ ই মার্চ তার বিরুদ্ধে দৌলতপুর থানায় এ মামলা করেন ।
মামলার এজাহারে বলা হয়েছে গত ১৭ ই মার্চ দুপুর ১২:৪০এ আবেদ আলীর মেয়ে সাদিয়া আরফিন স্থানীয় বড়গাংদিয়া বাজার থেকে কেনাকাটা করে বাড়ি ফিরছিলেন। পথে আবুল কাশেম মেমোরিয়াল একাডেমির সামনে থেকে লিংকন আরও ২/৩ জনের সহযোগিতায় অপহরণ করে একটি মাইক্রোবাসে তুলে নেয়।
এজাহারে বলা হয়েছে পরে সাদিয়া আরফিনকে মাইক্রোর মধ্যে মারধর করা হয় এবং সে অজ্ঞান হয়ে পড়ে। এ অবস্থায় তাকে কুষ্টিয়া শহরের নিশান এলাকায় একটি তেল পাম্পের কাছে ফেলে রেখে পালিয়ে যান।
তবে এলাকায় খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এই অপহরণের ঘটনা আসলে একটি সাজানো নাটক। এলাকায় ওই ধরনের কোন ঘটনাই ঘটেনি। ঐদিন লিংকন গ্রামের বাইরে কোথাও যাননি। তিনি দুপুরে স্থানীয় মসজিদের জোহরের নামাজ আদায় করেন। মসজিদের মুসল্লিদের সাথে কথা বলে এর সত্যতা মিলেছে।
লিংকনের বাবা এই মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবি করেছেন। তিনি বলেন, পাওনা টাকা আত্মসাৎ করার উদ্দেশ্যে আবেদ আলী নিজের মেয়েকে ব্যবহার করে এই ঘৃণ্য কাজ করেছেন।
তিনি এ ব্যাপারে আবেদ আলীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছেন।

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর