শিরোনামঃ
এখন টিভির কুষ্টিয়া প্রতিনিধি সোহেল পারভেজের জন্মদিন আজ কুষ্টিয়া ট্রাফিক অফিস বার্ষিক পরিদর্শন করলেন এসপি খাইরুল আলম সুশাসন প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে ইবিতে অংশীজনদের সমন্বয় সভা। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিকট থেকে ইবি হ্যান্ডবল দল ও বাস্কেটবল দলের (চ্যাম্পিয়ন) পদক গ্রহণ। ইবিতে গ্লোবাল সিটিজেনশিপ এন্ড সিভিক এডুকেশন শীর্ষক দিনব্যাপী কর্মশালা অনুষ্ঠিত। দেশের সর্ববৃহৎ ব্যাংকিং নেটওয়ার্ক গড়ার প্রত্যয়ে আইএফআইসি ব্যাংক বিভিন্ন আয়োজনের মধ্যে দিয়ে পালিত হলো ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় দিবস। জনবাণী পত্রিকায় কুষ্টিয়া জেলা প্রতিনিধি হিসেবে নিয়োগ পেলেন সাংবাদিক হৃদয় কুষ্টিয়ায় ফুল বিক্রেতার গলা কাটা লাশ উদ্ধার ইবি’র ৪৩ বছর পূর্ণ হচ্ছে কাল

কেন্দুয়ায় বলৎকারের ঘটনায় ইমাম গ্রেপ্তার

ডেস্ক রিপোর্ট
  • আপডেটের সময়। রবিবার, ২৭ মার্চ, ২০২২
  • ২১৪ টাইম ভিউ

নেত্রকোণা জেলার কেন্দুয়া উপজেলার পাইকুড়া ইউনিয়নের বাড়লা বড় মসজিদের ইমাম তাজুল ইসলামকে পঞ্চম শ্রেণীর এক ছাত্রকে বলাৎকারের অভিযোগে আটক করেছে কেন্দুয়া থানার পুলিশ।
আটক হওয়া ইমামের বাড়ি পাশ্ববর্তী কিশোরগঞ্জ সদর থানার সফিলা গ্রামের মিলন মিয়ার ছেলে তিনি।

স্থানীয়দের বরাদ দিয়ে কেন্দুয়া থানার পুলিশ বলেন, আটক হওয়া তাজুল ইসলাম ৫/৬ মাস ধরে কেন্দুয়া উপজেলার পাইকুড়া ইউনিয়নের বাড়লা বড় মসজিদে ইমামের দায়িত্ব পালন করতেন, পাশাপাশি একই এলাকার আয়শা সিদ্দিকা মহিলা মাদ্রাসায় সকালে বাচ্চাদের মক্তব পড়াতেন। এলাকার কেনু মিয়ার বাড়িতে বাসা ভাড়া নিয়ে থাকতেন।

প্রতিদিনের মত রোববার (২৭ মার্চ) সকালেও এলাকার ছোট ছোট বাচ্চারা ওই মাদ্রাসায় মক্তব পড়তে যায়।

সকালের মক্তব পড়ার শেষে সকল বাচ্চাদের ছুটি দিয়ে ভিকটিম ও অন্য একজন ছাত্রকে ইমাম তাজুল ইসলাম বলেন, পাশের বাড়ি থেকে সকালের খাবার এনে দিতে।

ইমাম তাজুল ইসলামের কথা মত ভিকটিম ও তার সহপাঠী পাশের এক বাড়ি থেকে খাবার নিয়ে কেনু মিয়ার বাড়িতে আসার পর ঘরে দরজা বন্ধ করে দেন ইমাম তাজুল ইসলাম। পরে ভিকটিম ও তার সহপাঠীকে ইমাম বলেন তার হাত পা, টিপে দিতে।

এক পর্যায়ে ইমাম ভিকটিমকে ইমামের ঘরে রেখে ভিকটমের সহপাঠীকে বলে পাশের ঘরে চলে যেতে। এরপর ইমাম তাজুল ইসলাম ভিকটিমকে বলাৎকার করে।

পরে ভিকটিম তার পরিবারে লোকজনকে জানালে এলাকার লোকজন ওই মসজিদে ইমামকে আটক করে পুলিশকে খবর দেয় পরে পুলিশ ইমামকে গ্রেপ্তার করে থানায় নিয়ে আসে।

এ বিষয়ে কেন্দুয়া পুলিশ ফাঁড়ির এস আই সুমন তালুকদার বলেন, স্থানীয়রা প্রথমে ইমামকে আটক করে খবর দেয় পরে। আমরা তাকে গ্রেপ্তার করে থানায় নিয়ে আসি। পাশাপাশি ভিকটিমকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আশা হয়েছে।

কেন্দুয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাজী শাহ নেওয়াজ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ভিকটিমকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসা করে জানা যায়, মসজিদে ইমাম তাজুল ইসলাম ভিকটিমকে বলাৎকার (ধষর্ণ) করেছেন। ভিকটিমের মেডিকেল পরীক্ষা এবং পরিবারের লিখিত অভিযোগের প্রক্ষিতে আইন গত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর